October 17, 2021, 4:21 am
তাঁজাখবর
শাজাহানপুর থানা পুলিশ কর্তৃক ১০ কেজি গাঁজা উদ্ধার কাজিপুরে জলবায়ু পরিবর্তন বাস্তুচ্যুতি এবং অভিবাসন বিষয়ক বহু-অংশীজনের সংলাপ উজিরপুরে বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও র‌্যালি অনুষ্ঠিত শাজাহানপুরে পুজা মন্ডপ পরিদর্শন করলেন বিএনপি নেতা এনামুল হক শাহীন ধুনটে দুর্গা উৎসবে অর্থ সহায়তা দিলেন এমপি হাবিব ও পুত্র সনি শাজাহানপুরে পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তীর দুর্গামন্ডপ পরিদর্শন বগুড়ার শেরপুরে বিদ্যুৎস্পর্শে ৪ জনের মৃত্যু : বগুড়ায় এক ঘণ্টার জন্য ডিসি কলেজছাত্রী আফিয়া ফেসবুকে কিডনি কেনা-বেচা : সংঘবদ্ধ চক্রের হোতাসহ গ্রেফতার ৫ শাজাহানপুরে হেরোইন সহ মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

এবারও হচ্ছে না ঐতিহ্যবাহী ‘কেল্লাপোশী মেলা’

সংবাদদাতার নাম:
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, মে ২১, ২০২১
  • 46 দেখা হয়েছে:

বগুড়ার শেরপুর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী জামাইবরণ ‘কেল্লাপোশী’মেলা করোনাভাইরাসের কারণে এবারও অনুষ্ঠিত হচ্ছে না। গত বছরও করোনাভাইরাসের কারণে সাড়ে ৪শ বছরের ঐতিহ্যবাহী এই মেলা অনুষ্ঠিত হয়নি।

তিথি অনুযায়ী প্রতিবছর জৈষ্ঠ্য মাসের দ্বিতীয় রবিবার থেকে শেরপুর উপজেলার কুসুম্বী ইউনিয়নের কেল্লা ও পোশী গ্রামের বিস্তৃীর্ণ ফাঁকা মাঠে এই মেলা অনুষ্ঠিত হয়। এটি মাদারের মেলা, জামাই মেলা নামেও পরিচিত। এই মেলার মূল আকর্ষণ বড় মাছ ও আর মিষ্টি। তাছাড়া হরেক রকম খেলনা, কাঠের ফার্ণিচার,খেলা, সার্কাসসহ আনন্দ বিনোদনের নানা আয়োজন করা হতো প্রতিছর। তিনদিনের মেলার সরকারি অনুমতি নিয়ে মেলা চলতো পাচঁদিন। মেলায় দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে হাজার হাজার মানুষের সমাগম হতো। মেলা উপলক্ষ্যে আশে পাশের শতাধিক গ্রামে নতুন জামাইদের দাওয়াত দেয়া হতো। কিন্তু এ বছর করোনা ভাইরান পরিস্থিতি ও লকডাউনের কারণে দ্বিতীয় বছরের মতো মেলার আয়োজন হচ্ছে না।

কুসুম্বী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জুলফিকার আলী সনজু  জানান, করোনার কারণে এ বছরও মেলার কোন উদ্যোগ নেয়া হয়নি। এলাকার ঐতিহ্যবাহী মেলা হলেও করোনা সংক্রমন এড়াতে সরকারি নিদের্শনাই মানা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে শেরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. শহিদুল ইসলাম  জানান, মেলার অনুমতি নিতে এখনো কেউ আসেনি। তাছাড়া লকডাউনের মাঝে কোন মেলার অনুমতিও নেই।

এই মেলা নিয়ে রয়েছে নানা প্রচলিত কথা। ১৫৫৬ খ্রিষ্টাব্দ থেকে এই মেলা হয়ে আসছে বলে কথিত আছে। বৈরাগ নগরের বাদশা সেকেন্দারের ছেলে গাজী মিয়া ও দত্তক পুত্র কালু মিয়া রাজ্যের মায়া ত্যাগ করে ফকির সন্যাসীর বেশ ধারণ করে ঘুরতে ঘুরতে ব্রাহ্মণনগরে আসেন। সেখানে ব্রাহ্মণ রাজমুকুটের একমাত্র কন্যা চম্পা গাজীকে দেখে মুগ্ধ হন। একপর্যায়ে তারা দু’জন দু’জনকে ভালোবেসে ফেলেন।

পালিত ভাই কালু মিয়া বিষয়টি জানতে পেরে গাজীর বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে মুকুট রাজার কাছে যান। মুকুট রাজা ফকিরবেশী যুবকের এ স্পর্ধা দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে বন্দি করেন। এতে গাজী মিয়া দারুণ আঘাত পান। তিনি মুকুট রাজার কাছ থেকে ভাই কালু মিয়াকে উদ্ধারের জন্য কেল্লাপোশী নামক একটি দুর্গ নির্মাণ করেন। পরে রাজার সঙ্গে যুদ্ধ করে ভাইকে উদ্ধার এবং তার কন্যাকে বিয়ে করেন। আর তিথি অনুযায়ী ওই দিনটি ছিল জ্যৈষ্ঠের দ্বিতীয় রোববার।

ওই সময় গাজীর বিয়ে উপলক্ষে কেল্লাপোশী দুর্গে নিশান উড়িয়ে তিন দিনব্যাপী আনন্দ-উৎসব চলে এবং সেখানে মাজার গড়ে তোলা হয়। ওই দিনগুলোকে অম্লান করে রাখতে প্রতি বছর জ্যৈষ্ঠের দ্বিতীয় রোববার থেকে তিন দিনব্যাপী মেলা বসে। আর এই মেলা উপলক্ষে এলাকাবাসী নতুন জামাইকে ঘরে এনে আনন্দ উৎসবে মেতে ওঠেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। © All rights reserved © 2020 ABCBanglaNews24
Theme By bogranewslive
themesba-lates1749691102