January 25, 2022, 10:36 pm

গাবতলীতে অন্তসত্তা গৃহবধুর মৃত্যু নিয়ে ধ্রমজাল সৃষ্টি; শশুরবাড়ির লোকজনের তাড়াহুড়া করে দাফন

সংবাদদাতার নাম:
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, আগস্ট ১৯, ২০২১
  • 85 দেখা হয়েছে:

মিজানুর রহমান মিলন :
বগুড়ার গাবতলীতে ৫ মাসের অন্তসত্তা গৃহবধুর রহস্যজনক মৃত্যুতে ধ্রমজাল সৃষ্টি হয়েছে। এনিয়ে মৃত ফাহিমার ভাই রিমন বাদি হয়ে বগুড়ার নারী ও শিশু নিয্যাতন বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-২এ বোন এর স্বামী ও শশুর সহ ৭জনকে আসামী করে মামলা দ্বায়ের করেছেন।
মামলাসূত্রে ও স্থানীয়দের মাধ্যমে জানাযায়, গত ৮ বছর পূর্বে বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার সমজাতাইড় গ্রামের ফারুক হোসেনের কন্যা ফাহিমা আক্তার লিমা’কে পরিবারের অনিচ্ছা সত্ত্বেও প্রেমের প্রলোভনে বিয়ে করেন, গাবতলী উপজেলার লাংলুহাট জানপাড় ফকির পাড়া গ্রামের ওসমান গনির ছেলে শহিদুল ইসলাম। তাদের দাম্পত্য জীবনে ৫ বছরের মাহা নামে একটি কন্যা সন্তান আছে, সংসার চলাকালে যৌতুকের টাকা দাবী করে নানাবিধ অত্যচার করতো পাসন্ড স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন। এরই একপর্যায়ে মেয়ের সূখের কথা চিন্তা করে দিনমজুর পিতা ফারুক হোসেন ১লক্ষ ৫০ হাজার টাকা যৌতুক বাবদ দেন তাদের কাছে। কিছুদিন ঘর সংসার করার পর আবারো যৌতুকের টাকার জন্য চাপদিলে স্ত্রী ফাহিমা আক্তার লিমা দিতে অস্বিকার করলে আবারো শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন শুরু করে তার পরিবারের লোকজন। ফলে বাধ্য হয়ে বাবার বাড়ি বগুড়া সোনাতলা উপজেলার সমজাতাইড় গ্রামে ৩ মাস অবস্থান করে। পরে চলতি মাসের ৭ই আগষ্ট জেলা জজ কোর্টের আইনজীবী রফিকুল ইসলামসহ এ্যাভোকেট ফজলুল হক এর হেফাজতে (জিম্মায়) নিয়ে যায় তার স্বামীর বাড়ির লোকজন।

এরপর ১৬ই আগষ্ট বিকেলে ফাহিমা আকতারের শশুর এর প্ররোচনায় স্বামী শাহিদুল ইসলাম ৩লক্ষ টাকা যৌতুক বাবদ না দিতে পারায় এবং বাপের বাড়িতে যাওয়ায় স্ত্রী ফাহিমা আক্তারকে শারীরিক নির্যাতন করেন। এতে ফাহিমা অসুস্থ্য হয়ে পরলে পরিস্থিতির অবনতি হলে বগুড়ার টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ হাসপালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে।

এদিকে স্বামী শাহিদুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানায়
গৃহবধুর ফাহিমার সাথে আলোচনা করে গর্ভপাত ঘটানোর জন্য ১৬ তারিখে সোনাতলা উপজেলার বালুয়াহাট জীবন হোমিও হলে ডাক্তার মিসেস লাকী আলম এর কাছ থেকে গর্ভপাতের প্রয়োজনীয় কার্যক্রম শেষ করে ঔষধ নিয়ে বাড়িতে গেলে ঔষধ খাওয়ার পর থেকে তার শারিরীক অবস্থার অবনতি ও ( রক্তক্ষরণ) বেশি শুরু হলে তাৎক্ষণিক সিএনজি যোগে বগুড়ার টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ হাসপালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

মামলাসূত্রে জানাযায়, নিহত ফাহিমা আক্তার লিমা’র উপর যৌতুকের টাকার জন্য নানাবিধ শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করত তার স্বামী শাহিদুল ইসলাম সহ পরিবারের লোকজন।
গত ১৬ই আগষ্ট রাতে স্বামী শাহিদুল ইসলাম ফাহিমা আক্তার লিমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে পেটে সজোরে লাত্থি মারে এতেই শারিরীক অবস্থার অবনতি ও ( রক্তক্ষরণ) বেশি শুরু হয়ে প্রায়মৃত্যু হয়।
এঘটনায় শশুরবাড়ির লোকজন তারাহুড়া করে ফাহিমার লাশ দাফন করায় রহস্যের সৃষ্টি হয়। এ নিয়ে এলাকার মানুষের মাঝে নানা গুঞ্জন শুরু হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। © All rights reserved © 2020 ABCBanglaNews24
Theme By bogranewslive
themesba-lates1749691102