October 25, 2021, 2:19 pm
তাঁজাখবর
বাগমারায় এক গৃহবধূ নির্যাতনের শিকার বগুড়া সদরের লাহিড়ীপাড়ায় নিহত সিএনজি চালক জাহেরের দাফন শেষে সিএনজি চালকদের মানববন্ধন সাংবাদিক নাসির উদ্দীন বালীর মৃত্যুতে শোক সভা ও দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত প্রয়াণ দিবসে কবি জীবনানন্দ দাশকে নিয়ে বগুড়ায় আলোচনা চৌহালীতে খাষপুকুরিয়ার ইউপি নির্বাচনে নৌকা’র প্রতীক প্রত্যাশী মাসুম সিকদার আদমদীঘিতে রক্তদহ বিলে অভিযানঃ ২ হাজার মিটার ভাদাই জাল জব্দ সান্তাহারে ট্রেন থেকে চোলাই মদসহ গ্রেপ্তার ১ কাজিপুরে আওয়ামীলীগের উদ্যোগে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল দক্ষিণ বঙ্গের রাজনৈতিক অভিভাবক আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ’র হাত ধরে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছেন উজিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান নন্দীগ্রামে পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তার-৬

বগুড়ায় পাটের বাজার ভালো পাওয়ায় কৃষকের মুখ হাসি ফুটেছে

সংবাদদাতার নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, সেপ্টেম্বর ৪, ২০২১
  • 79 দেখা হয়েছে:

 

এস এম সালমান হৃদয় বগুড়াঃ

বগুড়ায় এবার পাটের বাজারমুল্য পাট চাষীদের মুখে হাসি এনে দিয়েছে। লোকসান থেকে বেরিয়ে চাষীরা এখন পাট চাষে লাভের মুখ দেখছে। এতে এ অঞ্চলে সোনালী আঁশ পাট চাষের হারানো গৌরব ফিরে আসার সুযোগ তৈরী হয়েছে। কৃষকরা যেমন পাটের ভালো দাম পাচ্ছেন, তেমনি এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে পাটের আবাদও বাড়ছে। কৃষি বিভাগ বলছে, লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে এবার বগুড়ায় পাটের আবাদ ও ফলন দুটোই ভালো হয়েছে। হাট বাজারে এখন প্রতিমন পাট বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার টাকার ওপরে।

বগুড়া কৃষি সম্প্রসারণ অফিস সুত্র জানায়, বগুড়ায় এবার ১২ হাজার ১৬৮ হেক্টর জমিতে পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা নেয়া হলেও তা ছাড়িয়ে যায়। উপ-সহকারী কৃষি কর্মর্কতা ফরিদুর রহমান জানান, এবার উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিলো ২৯ হাজার মেট্রিক টন। এখন পর্যন্ত প্রায় ৯২ শতাংশ জমির পাটের আবাদ কর্তন হয়েছে। প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী উৎপাদন ৩১ হাজার মেট্রিন টন ছাড়িয়েছে।

কৃষি বিভাগ জানায়, গত বছর বছর ১২ হাজার ১৪০ হেক্টর জমিতে জেলায় পাটের আবাদ হয়। তবে এর আগে কমে গিয়ে সাড়ে ১১ হাজার হেক্টর জমিতে বগুড়ায় পাটের আবাদ হয়েছিলো। কৃষি কর্মকর্তা ফরিদুর রহমান আরো জানান, বগুড়ায় কয়েক বছর আগেও প্রতিবছর ১৪ থেকে ১৫ হাজার হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হতো। তবে সংশ্লিস্ট সুত্র জানায়, মাঝে কয়ক বছর ধরে উৎপদন খরচের তুলনায় দাম না পওয়াসহ প্রতিকুল আবহাওয়ার কারণে কৃষকরা লাগাতর ক্ষতির মুখে পড়ায় জেলায় পাটের আবাদ সাড়ে ১১ হাজার হেক্টরে নেমে এসেছিলো।

গত বছর থেকে পাটের দাম সন্তোষজনক হওয়ায় কৃষকরা আবার পাট চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে। গত বছর প্রথম পাটকাটা মৌসুমের শুরুতেই প্রতিমন পাট বিক্রি হয়েছে ২ হাজার থেকে ২২শ টাকা দরে। পরে এটি ৩৫ শ’ এবং মৌসুমের শেষ পর্যায়ে হাটে প্রতিমন পাটের দাম ৫ হাজার টাকা পৌঁছায়। বগুড়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের হিসাব অনুযায়ি গত বছর প্রতিমন পাটের গড় মুল্য হয়েছিলো ৩৫ শ’ টাকা।

বগুড়ায় পাটের মুল আবাদ হয় সারিয়াকান্দি, সোনাতলা, ধুনট ও গাবতলি উপজেলায়। তোষা, কেনাপ, ও মেস্তা ছাড়াও দেশীয় আরেক জাতের পাট আবাদ হয়। তবে এর মধ্যে তোষা জাতের পাটের আবাদই সবেচেয়ে বেশি। অন্য জাতের আবাদ তেমন উল্লেখযোগ্য নয় বলে কৃষি বিভাগ জানায়। আর এই পাট আবাদের ৫০ ভাগের বেশি উৎপাদন হয় যমুনা তীরবর্তী সারিয়াকান্দি উপজেলায়। কৃষি বিভাগের হিসাব অনুযায়ী প্রতি বিঘায় পাট আবাদে খরচ সাড়ে ১৩ হাজার। আর প্রতি বিঘায় এবার ৯ মন পর্যন্ত পাট উৎপাদন হয়েছে। পাট চাষী আবাদুল বারী ঠান্ডু থাকেন সারিয়াকান্দি উপজেলার হিন্দুকান্দী এলাকায়। চর বেষ্টিত কাজলা ইউনিয়নের পাখি মারা চরে পাটের আবদ করেছিলেন ৫ বিঘায়। আবাদ হয়েছে প্রায় ৪০ মণের কাছাকাছি। এখন পর্যন্ত প্রতি মন ২৮ শ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৩২ শ’ টাকা দর পর্যন্ত ১৪ মন পাট বিক্রি করেছেন। তিনি জনালেন, এবার পাটের বাজার নিয়ে তারা খুশি। লাভের মুখ দেখায় জানালেন, দু’ড্যা পয়সা গৃর্হস্থ্যের ঘরে গ্যাছে’। একই ইউনিয়নের চুরিপাড়ার আল আমিন জানালেন, তাদের এলাকায় পাটের কদর আবার বাড়ছে। এবার পাটের আবাদে লাভ হওয়ায় তার মতো অন্য কৃষকরাও খুশি বলে জানালেন। তিনি ৪ বিঘা জমির পাট ২৬শ’ থেকে ৩২ টাকা মণে বিক্রি করেছেন বলে জানালেন। বগুড়ার অন্যতম পাটের হাট সারিয়াকান্দি ঘুরে দেখা গেছে এবার শুরু থেকে ২৮ শ’ টাকা থেকে ৩২ শ’ টাকা দরে পাট বিক্রি হচ্ছে। বর্তমানে হাটে বেশির ভাগ ফরিয়া ব্যবসায়ী কৃষকদের নিকট বাড়ি থেকে পাট কিনে এনে হাটে বিক্রি করছেন।পাট ব্যবসায়ী আব্দুল কাদের জানালেন, তিনি প্রায় ১০ বছর ধরে পাটের ব্যবসা করেন। হাট থেকে কিনে মিল মালিকের এজেন্টের নিকট পাট বিক্রি করেন। গত বছর শুরুতে ২ হাজার ২২ শ’ টাকা হলেও এবার মৌসুমের শুরু থেকেই কৃষকরা পাটের দাম ভালো দাম পাচ্ছেন। গত দুই হাটে সর্বোচ্চ ৩৪ শ’ টাকা মণ দরে পাট বিক্রি হয়েছে। তিনি জানালেন ৩ বছর আগে পাটের দাম ১২/১৪ শ’ টাকায় ছিলো। এতে লোকসানে পড়ে কৃষকরা পাট উৎপাদনে আগ্রহ হারায়। গত বছর ভালো দাম পাওয়ায় এবার কৃষকরা আগ্রহ নিয়ে পাটের আবাদে ফিরছে। আরেক পাট ব্যবসায়ী মিলন মিয়া জানালেন, গত বছর এই সময়ে পাটের দাম ছিলো মন প্রতি প্রায় ২৪শ’ টাকা। এবার সেখানে ২৯ থেথে ৩২শ’ টাকা। বগুড়া কৃষি সম্প্রসরাণ বিভাগ জানিয়েছে, এবারও প্রতিমণ পাটের গড় মুল্য গত বছরের মতো হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। © All rights reserved © 2020 ABCBanglaNews24
Theme By bogranewslive
themesba-lates1749691102