October 18, 2021, 5:04 am
তাঁজাখবর
শাজাহানপুরে ইউপি সদস্য পদপ্রার্থী ভোটার তালিকায় মৃত বগুড়ায় বিষপানে প্রেমিকার আত্মহত্যা, প্রেমিকের আত্মহত্যার চেষ্টা শাজাহানপুর থানা পুলিশ কর্তৃক ১০ কেজি গাঁজা উদ্ধার কাজিপুরে জলবায়ু পরিবর্তন বাস্তুচ্যুতি এবং অভিবাসন বিষয়ক বহু-অংশীজনের সংলাপ উজিরপুরে বিশ্ব খাদ্য দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও র‌্যালি অনুষ্ঠিত শাজাহানপুরে পুজা মন্ডপ পরিদর্শন করলেন বিএনপি নেতা এনামুল হক শাহীন ধুনটে দুর্গা উৎসবে অর্থ সহায়তা দিলেন এমপি হাবিব ও পুত্র সনি শাজাহানপুরে পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তীর দুর্গামন্ডপ পরিদর্শন বগুড়ার শেরপুরে বিদ্যুৎস্পর্শে ৪ জনের মৃত্যু : বগুড়ায় এক ঘণ্টার জন্য ডিসি কলেজছাত্রী আফিয়া

বগুড়ায় শিক্ষক আজিজুরের ‘ড্রাগন’ ফল চাষ এখন কৃষকদের রোল মডেল

সংবাদদাতার নাম:
  • প্রকাশিত: রবিবার, আগস্ট ২৩, ২০২০
  • 31 দেখা হয়েছে:

বগুড়া প্রতিনিধি:
বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার কুমিড়া পন্ডিতপুকুর উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আজিজুর রহমানের বসতভিটা ভাটরা ইউনিয়নের মাটিহাঁস গ্রামে। শিক্ষকতা পাশাপাশি কৃষিক্ষেত্রে বিপ্লব ও ভবিষ্যৎ সাফল্য আনতেই নিজ উদ্যোগে ‘ড্রাগন’ ফল চাষে মনোনিবেশ করেন। তার ব্যতিক্রমী উদ্যোগ একদিকে যেমন ব্যক্তিগত সাফল্য বয়ে এনেছে, অন্যদিকে তার দেখানো পথেই ওই গ্রামের অধিকাংশ কৃষিজীবিরাই এখন ঝুঁকে পড়ছে। অন্য জমিতে ধানের পাশাপাশি কেউ কেউ জড়িয়েছেন সবজি চাষের পাশাপাশি ব্যতিক্রমী শিক্ষক আজিজুর রহমানের ড্রাগন চাষ এখন রোল মডেলে পরিণত হয়ে এলাকার কৃষকদের উজ্জীবিত করছে।

শিক্ষক আজিজুর রহমান পারিবারিকভাবে প্রাপ্ত জমির অন্যান্য ফসল ও সবজি চাষের পাশাপাশি উপজেলার মাটিহাঁস গ্রামে নিজের তিনবিঘা জায়গাজুড়ে ২০১৮ সালে ড্রাগন ফলের চাষ শুরু করেন। প্রথমে নাটোর জেলা থেকে ৬০ টাকা করে ১০ টি ড্রাগন ফল গাছের চারা কিনে রোপন করেন। পরবর্তী সময়ে বাগানে যুক্ত করা হয় আরও ৫০টি চারা। চারা রোপণের এক বছরের মাথায় গাছে ফল আসে। ওই একই জমিতে সাথী ফসল হিসেবে রয়েছে ৬০টি থাই পেয়ারা, ৬৫টি আম গাছ ও ১৫০টি লিচু গাছ। প্রায় প্রতিটি গাছে ড্রাগন ফল ধরেছে। ফল বিক্রি করে ৪০-৫০ হাজার টাকা পাওয়া যাবে। বর্তমানে প্রতি কেজি ড্রাগন ফল বিক্রি হচ্ছে ৩০০ টাকায়। এদিকে ওই শিক্ষকের চাষকৃত ড্রাগন ফলের বাগান ঘুরে দেখা গেছে, পাঁচ ফুট উচ্চতার খুঁটি পেঁচিয়ে উঠেছে ড্রাগন ফলের গাছ। গাছে গাছে ঝুলছে চার থেকে পাঁচটি করে কাঁচা-আধা পাকা ড্রাগন ফল। উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এসে ড্রাগনের চাষপদ্ধতি জেনে নিচ্ছেন।

উপজেলা কৃষি বিভাগ জানায়, সব ধরনের মাটিতে ড্রাগন চাষ হয়। তবে উঁচু জমিতে ভালো ফলন পাওয়া যায়। তিন মিটার পরপর গর্ত করে চারা রোপণ করতে হয়। বছরের যে কোনো সময় চারা রোপণ করা যায়। তবে এপ্রিল থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে হলে ভালো। সিমেন্ট অথবা বাঁশের খুঁটিতে গাছ বেঁধে দিতে হয়। গাছে ফুল আসার ২০-২৫ দিনের মধ্যে ফল ধরে। প্রতিটি ফলের ওজন হয় ২০০-৬০০ গ্রাম। পরিপক্ব একটি গাছে সর্বোচ্চ ৮০টি ফল পাওয়া যায়। ছাদবাগানের টবেও এসব ড্রাগন ফল উৎপাদন করা সম্ভব।
ড্রাগন ফল চাষী শিক্ষক আজিজুর রহমান বলেন, একটি গাছ পরিপক্ব হতে দুই থেকে তিন বছর সময় লাগে। পরিপক্ব গাছে ২৫ থেকে ৭০টি ড্রাগন ফল ধরে। পরীক্ষামূলক চাষে সাফল্য আসায় তিনি ড্রাগন ফলের চাষ আরও বাড়াচ্ছেন। বাজারে ড্রাগন ফলের চাহিদাও অনেক। ‘বাজারে এ ফলের চাহিদা এবং দাম দুটোই রয়েছে। তবে সাধারণ মানুষের কাছে আরও পরিচিত করে তুলতে আমি কম দামেই বিক্রি করছি। ড্রাগন ফলটি বেশ রসালো ও সুস্বাদু হওয়ায় তিনি মোবাইল ফোনে সরবরাহ দেয়ার অর্ডার পাচ্ছেন। আগ্রহীরা যে কেউ সহজেই দেশের মাটিতে বিদেশি ফল ড্রাগন চাষে সফলতা অর্জন করতে পারবেন।
এদিকে উপজেলার সিংজানি গ্রামের নার্সারী ব্যবসায়ী আবদুল হালিম ১৩০ টি ড্রাগন গাছের চারা রোপন করেছেন। এখন কয়েকটি গাছে ফুল এসেছে। ফুল আসার ২০-২৫ দিনের মধ্যে ফল ধরে। তিনি বলেন, ড্রাগন চাষে ঝুঁকি কম, ফলের দামও বেশি দেখে অনেকে উৎসাহিত হচ্ছেন।
এ প্রসঙ্গে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আদনান বাবু বলেন, বাংলাদেশের মাটি ও আবহাওয়া ড্রাগন চাষের উপযোগী। চার প্রকারের ড্রাগনের মধ্যে বাণিজ্যিক চাষের জন্য বাউ-ড্রাগন-১ (সাদা) ও বাউ-ড্রাগন-২ (লাল) উপযোগী। ড্রাগন চাষের সফলতা পাওয়া যাচ্ছে। শিক্ষক আজিজুর রহমানের দেখাদেখি অনেকে ড্রাগন চাষে উৎসাহিত হচ্ছেন। বাণিজ্যিকভাবে ড্রাগন চাষ করার বিষয়ে সংশ্লিস্ট কৃষি বিভাগ এলাকার চাষিদের উৎসাহিত করছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। © All rights reserved © 2020 ABCBanglaNews24
Theme By bogranewslive
themesba-lates1749691102