October 26, 2021, 6:38 am
তাঁজাখবর
যমুনার পাড়ে দাড়িয়ে থাকা যে দশজন নৌকায় উঠতে পারলেন বাগমারায় উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে চায় আল- মামুন বাগমারায় এক গৃহবধূ নির্যাতনের শিকার বগুড়া সদরের লাহিড়ীপাড়ায় নিহত সিএনজি চালক জাহেরের দাফন শেষে সিএনজি চালকদের মানববন্ধন সাংবাদিক নাসির উদ্দীন বালীর মৃত্যুতে শোক সভা ও দোয়া মোনাজাত অনুষ্ঠিত প্রয়াণ দিবসে কবি জীবনানন্দ দাশকে নিয়ে বগুড়ায় আলোচনা চৌহালীতে খাষপুকুরিয়ার ইউপি নির্বাচনে নৌকা’র প্রতীক প্রত্যাশী মাসুম সিকদার আদমদীঘিতে রক্তদহ বিলে অভিযানঃ ২ হাজার মিটার ভাদাই জাল জব্দ সান্তাহারে ট্রেন থেকে চোলাই মদসহ গ্রেপ্তার ১ কাজিপুরে আওয়ামীলীগের উদ্যোগে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল

ভারত সীমান্তে কয়েশ’ চীনা জঙ্গি বিমান, উত্তেজনা চরমে

সংবাদদাতার নাম:
  • প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২০
  • 35 দেখা হয়েছে:

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

বৃহত্তর কাশ্মীরের লাদাখ অঞ্চলে চীন ও ভারতের মধ্যে ৫ মাস ধরে উত্তেজনা বিরাজমান। কয়েক দফার বৈঠকেও এর সমাধান আসেনি। বরং উভয়পক্ষের সংঘর্ষে ভারতের ২০ সেনার মৃত্যু হয়। এর মধ্যেই ভারতকে উদ্বেগে রাখতে চীন তাদের ‘উলফ ওয়ারিয়র কৌশল অবলম্বন করছে। বিরোধপূর্ণ লাইন অব কন্ট্রোল (এলওসি) অঞ্চলে চীনের অসংখ্য এইচ-৬ জঙ্গি বিমান চক্কর দিচ্ছে।

সম্প্রতি পিপলস লিবারেশন আর্মির সেন্ট্রাল থিয়েটার কমান্ড প্রকাশিত নতুন ছবি সামনে এনেছে মিলিটারি ওয়াচ ম্যাগাজিন। তাতে দেখা যায়, চীন ২৭০ টির বেশির এইচ-৬ জঙ্গি বিমান মোতায়েন করেছে, যার বেশিরভাগই দেশটির পূর্ব উপকূলের লাদাখ সংলগ্ন।।

বলা হচ্ছে, এটিই বিশ্বের বৃহত্তম জঙ্গি বিমানের বহর। লাদাখে ভবিষ্যৎ সংঘর্ষে এইচ-৬ এর বিস্তৃত পরিসীমায় ক্রুজ মিসাইল ছুড়তে পারার ক্ষমতা, মিসাইলের গতি পিপলস লিবারেশন আর্মিকে বাড়তি সুবিধা দিবে বলে জানানো হয় প্রতিবেদনটিতে।

এইচ-৬ মোতায়েনের মাধ্যমে উভয় দেশেরই এই অঞ্চলে বিমানঘাঁটির ঘাটতি থাকায়, দূর থেকে ভারতীয় ঘাঁটিতে আক্রমণ করতে পারার ক্ষমতা বাড়তি সুবিধা এনে দেবে চীনকে।

বিশেষ করে, এইচ-৬ থেকে সিজে-২০ ক্রুজ মিসাইল ছোড়া যায়; যার অস্ত্রবহন ক্ষমতা ৫০০ কেজি ও পাল্লা ২০০০ কি.মি.। সিজে-২০ এর অনুরূপ মিসাইল ওয়াইজে-৬৩ পাল্লা ২০৯ কি.মি. তবে তুলনামূলক হালকা। ফলে একটি বিমানেই অধিক সংখ্যক মিসাইল বহন করা যায়। এই ক্ষমতাই ভারতের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ।

এদিকে ভারত রাশিয়া থেকে আধুনিক তুপোলোভ তু-২২ এম কেনার পরিকল্পনা করছে। ভারত ইতোমধ্যে সুখোই সু-৩০ এমকেআই মোতায়েন করেছে, এই যুদ্ধবিমান থেকে কে-১০০ মিসাইল ছোড়া যায়। ৩০০ থেকে ৪০০ কি.মি. পাল্লায় কাজ করে এই মিসাইল। এছাড়াও দূরপাল্লার নিক্ষেপের জন্য রাশিয়ার থেকে এস-৪০০ মিসাইল কেনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়।

বর্তমানে লাদাখে আকাশপথে যুদ্ধের জন্য চীন সুবিধাজনক অবস্থানে আছে। তবে ভারতের এস-৪০০ কেনা এবং মিগ-৩৫ ও সু-৫৭ যুদ্ধবিমান কেনার পরিকল্পনা এই অবস্থার পরিবর্তন ঘটাতে পারে।

সম্প্রতি ভারত ফ্রান্স থেকে অত্যাধুনিক রাফাল ফাইটার জেটও কিনে নিয়েছে। ইকোনমিকস টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, রাফাল থেকে উন্নত প্রযুক্তির স্কাল্প ও মেটিওর মিসাইল ছোড়া যায়। স্কাল্প ৩০০ কি.মি. দূর থেকে লক্ষবস্তুতে আঘাত হানতে পারে।

যার ফলে আক্রমণের জন্য লাইন অব কন্ট্রোল এর সীমানার বাইরে যেতে হবেনা। মেটিওর হল বিয়ন্ড ভিসুয়াল রেঞ্জ (বিভিআর) এয়ার-টু-এয়ার মিসাইল। ১০০ কি.মি. দূর থেকে লক্ষবস্তুতে আঘাত হানতে পারে এটি।

অন্যদিকে, কে-১০০ কে প্রতিস্থাপনের জন্য ভারত ও রাশিয়া একত্রে আরও উন্নত প্রযুক্তির দূরপাল্লার মিসাইল বানানোর কাজ করছে। এই প্রকল্প সফল হলে তা ভবিষ্যতে চীনা বোমারু বিমানের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। © All rights reserved © 2020 ABCBanglaNews24
Theme By bogranewslive
themesba-lates1749691102