May 25, 2022, 4:12 pm
তাঁজাখবর

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে প্রধানমন্ত্রীর ৫ দফা পরামর্শ

সংবাদদাতার নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১
  • 36 দেখা হয়েছে:

‘অতি জরুরি’ ভিত্তিতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন জোরদারের দাবি জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই সঙ্গে এই সংকট সমাধানে পাঁচ দফা আন্তর্জাতিক পদক্ষেপ গ্রহণের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। নিউইয়র্কে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের (ইউএনজিএ) অধিবেশনের বিরতিতে আন্তর্জাতিক অংশীদারদের উচ্চপর্যায়ের এক আলোচনায় তিনি এ পরামর্শ দেন।

আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি বারবার বলেছি, তারা (রোহিঙ্গারা) মিয়ানমারের নাগরিক। সুতরাং অবশ্যই নিরাপত্তা ও মর্যাদা নিয়ে তাদের জন্মভূমি মিয়ানমারেই ফিরে যেতে হবে। এই সংকট প্রশ্নে প্রধান আন্তর্জাতিক শক্তিগুলোর নিষ্ক্রিয়তা বাংলাদেশকে মর্মাহত করেছে।’ তিনি বলেন, ‘সীমিত সম্পদ সত্ত্বেও মানবিক দিক বিবেচনা করে বাংলাদেশ শরণার্থীদের আশ্রয় দিয়েছিল। কিন্তু রোহিঙ্গা-সংকট আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক নিরাপত্তার জন্য উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ ব্যাপারে জরুরি প্রস্তাব গ্রহণ করা প্রয়োজন এবং আমি জোর দিয়ে বলতে চাই, এ ক্ষেত্রে আমরা বাংলাদেশে যা কিছু করছি, তা সম্পূর্ণরূপে অস্থায়ী ভিত্তিতে করা হচ্ছে।’

বক্তব্যে ন্যায়বিচার এবং নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনে ভুক্তভোগী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর মধ্যে দৃঢ় আস্থা ফিরিয়ে আনতে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা সম্প্রদায়কে নিপীড়নের জন্য দায়ী ব্যক্তিদের বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাতে দরকারি প্রচার চালানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী। একই সঙ্গে এই সংকট সমাধানে সুনির্দিষ্ট পাঁচ দফা পরামর্শও দেন তিনি। এগুলো হলো—প্রথমত, অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সবাই মিলে জোরালো প্রচেষ্টা চালানো; দ্বিতীয়ত, প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়ার অনিশ্চয়তা দূর করতে মিয়ানমারে রাজনৈতিক দৃশ্যপটের পরিবর্তন ঘটানো এবং এই সংকট সমাধানের পথ খুঁজে বের করতে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টার একটি সংশোধন প্রয়োজন; তৃতীয়ত, বর্তমান অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আসিয়ানের জোর প্রচেষ্টা নেওয়া; চতুর্থত, রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন ও তাদের ধারণের জন্য সহায়ক পরিবেশ তৈরিতে জাতিসংঘ ও অংশীদারদের মিয়ানমারে স্পষ্ট বিভিন্ন পদক্ষেপ ও প্রকল্প গ্রহণ করা এবং পঞ্চমত, মিয়ানমারে রোহিঙ্গা নির্যাতনের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের আইনের আওতায় আনা।

আগামীকাল শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে ভাষণ দেওয়ার কথা রয়েছে। তাঁর এই ভাষণের আগে বাংলাদেশের পৃষ্ঠপোষকতায় ‘হাইলেভেল সাইড ইভেন্ট অন ফরসিবলি ডিসপ্লেস মিয়ানমার ন্যাশনালস (রোহিঙ্গা) ক্রাইসিস: ইম্পারেটিভ ফর আ সাস্টেইনেবল সলিউশন’ শীর্ষক ভার্চুয়াল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ইউএনজিএর গুরুত্বপূর্ণ সাধারণ আলোচনায় এই সংকট তুলে ধরতে ঢাকার প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে এ বৈঠকের আয়োজন করা হয়।

বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০১৭ সালে রোহিঙ্গারা দলে দলে বাংলাদেশে পালিয়ে আসার পর থেকেই এই সংকটের একটি স্থায়ী সমাধানের জন্য একেবারে ধারাবাহিকভাবে ইউএনজিএর অধিবেশনে তিনি সুনির্দিষ্ট বিভিন্ন প্রস্তাব উপস্থাপন করেন। এ ব্যাপারে তাঁর সরকার মিয়ানমারের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় যোগাযোগ বজায় রেখেছে। তিনি বলেন, ‘আঞ্চলিক ক্ষেত্রে আমরা চীন, ভারতসহ প্রধান শক্তিগুলোকে এই সংকট সমাধানে সম্পৃক্ত করার চেষ্টা করেছি। আমরা সার্বক্ষণিকভাবে আসিয়ানকে আরও সক্রিয় রাখার চেষ্টা চালিয়েছি। বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন দেশ ও জাতিসংঘ সংস্থাগুলোর মনোযোগ আকর্ষণ করে জাতিসংঘ প্রস্তাবের মাধ্যমে বিষয়টি আলোচনার টেবিলে ধরে রেখেছি। তবে দুঃখজনকভাবে দুর্ভাগা, গৃহহীন হয়ে পড়া মিয়ানমারের নাগরিকদের দেশে ফিরে যাওয়ার জন্য চালানো আমাদের প্রচেষ্টা এখন পর্যন্ত কোনো আলোর মুখ দেখেনি।’

বর্তমান অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে আসিয়ানের জোরদার প্রচেষ্টা দেখতে চাওয়ার কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি, এ ক্ষেত্রে আসিয়ানের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব রয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় তাদের পদক্ষেপ মিয়ানমারকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করবে।’ শেখ হাসিনা বলেন, দেশ ছেড়ে পালাতে বাধ্য হওয়া জনগোষ্ঠীর আস্থা সৃষ্টিতে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন চালানোর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের আইনের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো গুরুত্বপূর্ণ। এ ধরনের ঘৃণ্য অপরাধে জড়িত ব্যক্তিদের শাস্তি থেকে রেহাই দেওয়া মোটেও উচিত হবে না। নির্যাতনকারীদের আইনের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো নিশ্চিত করতে বিশেষ করে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে (আইসিজে) দাঁড় করাতে চলমান আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টার প্রতি ঢাকার জোরালো সমর্থন রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ ও মানবাধিকার পরিষদের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক মেকানিজম করতে বিশ্বের জোরালো সমর্থন চান। তিনি বলেন, ‘২০১৭ সালে নিপীড়ন এড়াতে বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য থেকে রোহিঙ্গাদের ব্যাপক আগমনের শুরুতে আমাদের করণীয় ছিল তাদের জীবন বাঁচানো অথবা সীমান্ত বন্ধ করে দেওয়া। সীমান্ত বন্ধ করে দিলে তারা জাতিগত নিধনের মুখে পড়ত। মানবতার দিক বিবেচনা করে আমরা তাদের জীবন বাঁচানোর পদক্ষেপ গ্রহণ করি।’ তিনি বলেন, এই মানবিক সিদ্ধান্ত ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে বাংলাদেশের জনগণের নিজস্ব বেদনাদায়ক অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে এবং বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নীতিতে অনুপ্রাণিত হয়ে গ্রহণ করা হয়।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। © All rights reserved © 2020 ABCBanglaNews24
Theme By bogranewslive
themesba-lates1749691102