January 25, 2022, 11:17 pm

শেরপুরে এক ব্যাক্তিকে অপহরণের অভিযোগে তিন জন আটক

সংবাদদাতার নাম:
  • প্রকাশিত: শনিবার, ডিসেম্বর ১২, ২০২০
  • 36 দেখা হয়েছে:

ষ্টাফ রির্পোটার:

বগুড়ার শেরপুরে একটি বীজ ও কীটনাশক কোম্পানির বিপণন ব্যবস্থাপককে অপহরণের পর হত্যা ও লাশ গুমের অভিযোগ উঠেছে। অপহৃত হওয়া ওই ব্যবস্থাপকের নাম মো. ইকবাল হোসেন (২৬)। তিনি জেলার নন্দীগ্রাম উপজেলার রণবাঘা গ্রামের রাজাবুল ইসলামের ছেলে। গত ৬ ডিসেম্বর থেকে নিখোঁজ রয়েছেন তিনি। এ ঘটনায় শুক্রবার (১১ডিসেম্বর) অপহৃত ব্যবস্থাপকের ভাই নাজমুল হুদা বাদি হয়ে শেরপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজনকে আটক করেছে। এছাড়া নিখোঁজ ব্যক্তির সন্ধান না পেলেও তার ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ও হেলমেট উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে পুলিশ।
আটক ব্যক্তিরা হলেন- শেরপুর পৌরশহরের হাসপাতাল রোড পল্লীবাস এলাকার মৃত ওয়াজেদ আলীর ছেলে মো. নাহিদ হাসান লিটন (৩৪), পাশের খেজুরতলাস্থ শান্তিনগর পাড়ার শাহ আলম শেখের ছেলে মো. আরিফ শেখ (২৭) ও পশ্চিম দত্তপাড়ার আব্দুর রউফের ছেলে মো. তবিবর রহমান টিপু (২৯)।
মামলা সূত্রে জানা যায়, লাল তীর নামের একটি কোম্পানির শেরপুর ও ধুনট উপজেলায় বীজ ও কীটনাশক বিপণন ব্যবস্থাপক হিসেবে চাকরি করতেন ইকবাল হোসেন। সে কারণে শেরপুর শহরের তালতলা এলাকাস্থ ভিআইপি ছাত্রাবাসে থাকতেন তিনি। অন্যান্য দিনের ন্যায় গত ৬ ডিসেম্বর সকালে কোম্পানির অর্ডার নিতে এবং বকেয়া টাকা আদায়ের জন্য বেড়িয়ে যান। এরপর থেকে আর অফিসে আসেননি। এমনকি তার ব্যবহৃত মুঠোফোনও বন্ধ পাওয়া যায়। পরে গত ০৮ ডিসেম্বর কোম্পানির পক্ষ থেকে তার বাড়িতে লোক পাঠানো হয়। মূলত এরপরই ইকবালের নিখোঁজ হওয়া বিষয়টি সবাই জানতে পারেন। এরপর পরিবারের পক্ষ থেকে শেরপুর থানায় একটি অভিযোগ করা হয়। পরবর্তীতে তাকে উদ্ধারে অভিযানে নামেন পুলিশ। একপর্যায়ে উপজেলার চান্দাইকোনা-রানীরহাট সড়কের ভবানীপুর এলাকায় সড়কের পাশে পরিত্যক্ত অবস্থায় ইকবালের ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ও হেলমেট উদ্ধার করেন বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে শুক্রবার (১১ডিসেম্বর) বিকেলে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত নিখোঁজ ওই ব্যবস্থাপকের সন্ধান মেলেনি।
মামলার বাদি ভাই নাজমুল হুদা বলেন, পুলিশি অভিযানে আটক হওয়া ব্যক্তিরাসহ অজ্ঞাত আরও কয়েকজনের সঙ্গে তার ভাইয়ের বন্ধুর সম্পর্ক ছিল। তবে কিছুদিন ধরে তাদের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি ঘটে। তাই নিখোঁজ হওয়ার দিনগত রাত অনুমান সাড়ে সাতটার দিকে নাহিদ হাসান লিটন মুঠোফোনের মাধ্যমে ভাই ইকবালকে শহরের খেজুরতলাস্থ একটি মেশিনারীজ দোকানে ডেকে পাঁচশত টাকা ধার চান। কিন্তু না দেয়ায় তাদের মধ্যে বাকবিত-া হয়। এরই জেরধরে নাহিদ ও আরিফের নেতৃত্বে অজ্ঞাত ব্যক্তিরা তাকে অপহরণের পর লাশ গুম করে রেখেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শেরপুর থানার ওসি শহিদুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা নেয়া হয়েছে। পাশাপাশি ঘটনায় জড়িত তিনজনকেও আটক করা হয়েছে। নিখোঁজ ব্যক্তির ব্যবহৃত মোটরসাইকেলটি উদ্ধার হলেও ইকবাল হোসেনকে হত্যা করে লাশ গুম করা হয়েছে কি-না তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। তাই অপহৃত ব্যক্তির সন্ধান পেতে আটক হওয়া ব্যক্তিদের আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতদিনের রিমান্ডে নেয়া হইয়েছে ।

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। © All rights reserved © 2020 ABCBanglaNews24
Theme By bogranewslive
themesba-lates1749691102