November 29, 2021, 6:37 am

স্যার ফিনিশ’ আউয়ালকে কিলারের ফোন

সংবাদদাতার নাম:
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, মে ২১, ২০২১
  • 66 দেখা হয়েছে:

রাজধানীর পল্লবীতে সাহিনুদ্দীনকে হত্যার পর কিলার সুমন লক্ষ্মীপুর-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য তরিকত ফেডারেশনের সাবেক মহাসচিব এমএ আউয়ালকে ফোন করে জানায়, ‘স্যার ফিনিশ’। আউয়ালের সঙ্গে তার ৩০ সেকেন্ড কথা হয়। ঘটনার আগের দিন সুমন, বাবুসহ কিলিং মিশনে অংশগ্রহণকারী বেশ কয়েকজন শলাপরামর্শ করেন। তারা গত ১৬ই মে ঘটনাস্থলে জড়ো হয়। সেখানে জমির বিরোধের মীমাংসার অজুহাতে পূর্বেই সাহিনুদ্দীনকে আসতে বলেছিল ঘাতকরা। সেখানেই সুমন, মনির, মানিক, হাসান, ইকবাল এবং মুরাদ কুপিয়ে হত্যা করে সাহিনকে।
গতকাল বিকালে রাজধানীর কাওরান বাজার র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম বিভাগের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন এসব তথ্য জানান। এর আগে বুধবার রাতে ভৈরবের একটি মাজার থেকে সাবেক এমপি আউয়ালকে এবং চাঁদপুর থেকে হাসান (১৯) এবং পটুয়াখালী থেকে জহিরুল ইসলাম বাবু (২৭)কে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।
সংবাদ সম্মেলনে খন্দকার আল মঈন জানান, গত ১৬ই মে পল্লবীতে নিজ সন্তানের সামনে সাহিনুদ্দীন নামে এক ব্যক্তিকে প্রকাশ্যে অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। ওই ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। মামলায় ভিকটিমের পরিবারের পক্ষ থেকে ২০ জনকে নামীয় ও ১৪ থেকে ১৫ জনকে অজ্ঞাতনামা আসামি করা হয়। মামলাটি র‌্যাবের পক্ষ থেকে ছায়া তদন্ত শুরু হয় এবং গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়।

তিনি জানান, হত্যাকাণ্ডের ৪/৫ দিন আগে আউয়ালের কলাবাগানের অফিসে বসে সন্ত্রাসী তাহের ও সুমনসহ আরো কয়েকজনের সঙ্গে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়। হত্যাকাণ্ড বাস্তবায়নের জন্য সুমনকে দায়িত্ব দেয়া হয়। সুমনের নেতৃত্বে অন্তত ১০/১২ জন সক্রিয়ভাবে কিলিং মিশনে অংশগ্রহণ করে। এ ছাড়া আরো কয়েকজন যুক্ত ছিল।
তিনি আরো জানান, হত্যার আগের দিন গত ১৫ই মে সুমন, বাবুসহ কিলিং মিশনে অংশগ্রহণকারী বেশ কয়েকজন ষড়যন্ত্র ও ছক করে। ১৬ই মে তারা পল্লবীর ঘটনাস্থলে একত্রিত হয়। সাহিনুদ্দীনকে তারা সমঝোতার কথা বলে ডেকে আনে। সাত বছরের ছেলে মাশরাফিকে নিয়ে মোটরসাইকেলে সেখানে যান সাহিনুদ্দীন। প্রথমে সুমন, মনির, মানিক, হাসান, ইকবাল ও মুরাদসহ ১০/১২ জন সাহিনুদ্দীনকে এলোপাতাড়ি আঘাত করে। শেষ পর্যায়ে মনির সাহিনুদ্দীনের মাথায় এবং মানিক পায়ে কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে।
তিনি আরো জানান, নিহত সাহিনুদ্দীন ও সুমন গ্রুপের মধ্যে গত দুই মাসে একাধিকবার মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় পল্লবী থানায় ছয়টি মামলা হয়েছে। আলীনগর বুড়িরটেকে আউয়ালের একটি আবাসন প্রজেক্ট করেছে। সেখানে সাহিনুদ্দীনের পরিবারের জমি রয়েছে। সেই জমি দখল করে নিতে চেয়েছিলেন আউয়াল। এ জন্যই মূলত তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব।
সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, এমএ আউয়াল নিজের আবাসন প্রকল্প পাহারার কাজে সন্ত্রাসী লালনপালন করেন। কিলার সুমনকে আউয়াল মাসে ১০/১২ হাজার টাকা দিতেন। হত্যাকাণ্ডে তাদের মধ্যে লেনদেন হয়েছে। তবে এ কাজে কতো টাকা ব্যয় হয়েছে নির্দিষ্ট করে তা জানাতে পারেনি। তবে র‌্যাব নিহতের পরিবারের কাছ থেকে জানতে পেরেছে যে, ৩০ লাখ টাকা চুক্তিতে দুর্বৃত্তরা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে আউয়ালের ঘনিষ্ঠ টিটু ও তাহের জড়িত। হত্যাকাণ্ডের জন্য টিটুর মাধ্যমে সুমনের কাছে টাকা গেছে। টিটু, তাহেরসহ যারা এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত তাদের ধরতে অভিযান চলছে।
তিনি আরো জানান, হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সুমন একজন সন্ত্রাসী। সে স্থানীয় সুমন বাহিনী গড়ে তোলে এলাকায় বিভিন্নস্থান থেকে টাকা আদায়, রিকশার টোকেন বাণিজ্য, লেগুনার স্ট্যান্ড নিয়ন্ত্রণসহ বিভিন্ন অপকর্ম করে থাকে। সুমন কোনো দলের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নয়। বিভিন্নজনের নাম ভাঙ্গিয়ে সে এসব অপকর্ম করে থাকে।
হত্যাকাণ্ডের মূল কারণ কী জানতে চাইলে তিনি জানান, এ হত্যাকাণ্ডের মূল কারণ জমি দখল। আউয়াল জমি দখল করতে গিয়ে তার লোকজনকে দিয়ে এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে একজন সাবেক মেজর জড়িত কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, আমরা এমন তথ্য এখনো পাইনি। তবে আমরা তদন্ত করছি।
সংবাদ সম্মেলনে এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন র‌্যাব-৪ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মোজাম্মেল হক, র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম বিভাগের পরিচালক মেজর রইসুল আজম মনি, সহকারী পরিচালক এএসপি ইমরান হোসেন খান, র‌্যাব-৪ এর এএসপি মো. নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ বিভাগের আরো সংবাদ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। © All rights reserved © 2020 ABCBanglaNews24
Theme By bogranewslive
themesba-lates1749691102